মঙ্গলবার , ২২ নভেম্বর ২০২২ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরো
  6. ইসলামিক
  7. কবিতা
  8. কৃষি সংবাদ
  9. ক্যাম্পাস
  10. খাদ্য ও পুষ্টি
  11. খুলনা
  12. খেলাধুলা
  13. চট্টগ্রাম
  14. ছড়া
  15. জাতীয়

আটক বানিজ্যে মাতোয়ারা চন্দ্রিমা থানার এস আই প্লাবন

প্রতিবেদক
ঢাকার টাইম
নভেম্বর ২২, ২০২২ ১২:০৪ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

রাজশাহী মহানগরীর চন্দ্রিমা থানার এস আই প্লাবনের বিরুদ্ধে দুইজন নিরপরাধ ব্যক্তিকে আটক করে ৫০ হাজার টাকা দাবি’র অভিযোগ উঠেছে।

ভুক্তভোগী পরিবার ও সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, এস আই প্লাবন দুই ব্যক্তিকে আটক করে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। দাবিকৃত অর্থ না দিলে হেরোইন মামলায় হুমকি দেন তিনি। পরে অবশ্য ৮ হাজার টাকা নিয়ে হেরোইন মামলা না দিয়ে ২০ লিটার চোলাই মদের মামলা দেন। আটকদের ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি ছেড়ে দেন তিনি।

জানা যায়, গত ২০ নভেম্বর রবিবার সন্ধ্যা ৬.২০ ঘটিকায় চন্দ্রিমা থানা এলাকার মুরশোইল স্কুলের পার্শে রাস্তা দিয়ে মোটর সাইকেল যোগে জয় ও শরিফুল নামের ২ জন যুবক বাচ্চুর মোড়ের দিকে আসছিল। পরে সেখানে ডিউটিরত পুলিশ সন্দেহ করে মোটর সাইকেলের গতিরোধ করেন এস আই প্লাবন।

আটকরা হলেন, চন্দ্রিমা থানাধীন মুশরইল বাচ্চুর মোড় এলাকার শরিফের ছেলে জয় (২২) ও একই এলাকার জালাল উদ্দীনের ছেলে শরিফুল (২৩)।

ভুক্তভোগী পরিবার জানায়, আটকের পরে তারা ফোন করে জানালে আমরা থানায় যাই। এ সময় আমাদের কাছে এস আই প্লাবন ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। বলেন ওরা তো মদ পান করেছে। এখন হেরোইন মামলা দেওয়া হবে। ৫০ হাজার টাকা দিলে হেরোইন মামলা না দিয়ে ছেড়ে দিবো।
ভয়ে ভীতু হয়ে পরিবারের লোকজন পুলিশের চাহিদা অনুযায়ী টাকা ম্যানেজ করতে শুরু করেন। পরে তারা মাত্র ৮ হাজার টাকা সংগ্রহ করতে পারেন। এটাতেই এস আই ক্ষিপ্ত হয়ে, ঐ টাকায় শুধু তাদের সাথে থাকা মোটর সাইকেলটি ছেড়ে দেন। এরপর আটক দুইজনকে ২০ লিটার চোলাই মদের মামলা দিয়ে চালান দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তাদের পরিবার।

এদিকে অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, গাড়ির কাগজপত্র ও অবৈধ মালামাল দেখার নাম করে প্রতিনিয়ত পকেট ভারি করছে এই এস আই। ডিউটিরত না থেকেও সিভিলে থাকা অবস্থায় সাধারণ মানুষকে হয়রানি ও আটক বানিজ্যে লিপ্ত হয়েছেন তিনি। এ নিয়ে এলাকার গাড়ির মালিক ও চালকরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে এস,আই প্লাবন কুমার সাহার মুঠোফোনে ফোন দিলে তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃতদের কাছে থেকে চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়েছে, টাকা নেওয়ার অভিযোগ সঠিক না। আপনি হ্যাপি আপার সাথে কথা বলেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চন্দ্রিমা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ইমরান হোসেন বলেন, আমি এ বিষয়ে কোন কিছুই জানি না আপনি থানায় আসেন, ঘটনা যদি সত্য হয় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

সর্বশেষ - সারা দেশ

%d bloggers like this:

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট