বুধবার , ১৯ অক্টোবর ২০২২ | ২০শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অভিযোগ
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আগুন দুর্ঘটনা
  6. আটক
  7. আন্তর্জাতিক
  8. আরো
  9. আলোচনা সভা
  10. ইসলামিক
  11. উদ্ধার
  12. কবিতা
  13. কমিটি গঠন
  14. কৃষি সংবাদ
  15. ক্যাম্পাস

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের (আরএনপিপি) দ্বিতীয় ইউনিটে রিঅ্যাক্টর প্রেসার ভ্যাসেল (আরপিভি) স্থাপন উদ্বোধন

প্রতিবেদক
ঢাকার টাইম
অক্টোবর ১৯, ২০২২ ১১:১২ পূর্বাহ্ণ

 

স্টাফ রিপোর্টার: মোঃ মুশফিকুর রহমানঃ

বৈশ্বিক বিবিধ সংকটের মধ্যেও নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী ঈশ্বরদীর রূপপুরে নির্মাণাধীন দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় ইউনিটের মূল যন্ত্র রিয়্যাক্টর প্রেসার ভেসেল বা পরমাণু চুল্লিপাত্র স্থাপন করা হলো।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ভাবে এই প্রেসার ভেসেল স্থাপন কাজের উদ্বোধন করেন।

আজ বুধবার (১৯ অক্টোবর ) সকাল ১০ টা ৩৪ মিনিটে প্রেসার ভেসেল স্থাপনের অনুমতি দেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে সংযুক্ত হন।

পরমাণু শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহারকারী দেশের তালিকায় আরেক ধাপ অগ্রগতির পথে রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র। বর্তমানে বিশ্বে মোট ৩৩টি দেশ পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে। বাংলাদেশ আগামী বছরের শেষের দিকে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির প্রথম ইউনিট উৎপাদনে যাবে। তবে সেটি থেকে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ কবে যাবে তা নির্ভর করবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমানের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি করপোরেশন-রোসাটমের মহাপরিচালক অ্যালেক্সি লিখাচেভ ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রাণালয়ের সিনিয়র সচিব জিয়াউল হাসান বক্তব্য দেন।

রিয়্যাক্টর ভবনের ভেতর থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে রূপপুর প্রকল্পের পরিচালক ও পরমাণু বিজ্ঞানী ড. শৌকত আকবর, রিয়্যাক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপনের অনুমতি চান। প্রধানমন্ত্রী অনুমতি দিলে, রিয়্যাক্টর ভেসেলটি নকশা অনুযায়ী যথা স্থানে বসানো হয়। ৫ থেকে ৬ মিনিটের মধ্যে এটি বসানো শেষ হলে জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে রিয়্যাক্টর ভবন থেকে অনুষ্ঠানস্থল। এর আগে গত বছরের ১০ অক্টোবর প্রথম ইউনিটের রিঅ্যাক্টর প্রেশার ভেসেল স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছিলেন তিনি।

রাশিয়ার কারিগরি ও আর্থিক সহায়তায় নির্মিত হচ্ছে রূপপুর প্রকল্প। এই প্রকল্পের দ্বিতীয় ইউনিটে যে রিয়্যাক্টর স্থাপন করা হলো সেটিও রাশিয়ার তৈরি সর্বশেষ প্রযুক্তি থ্রিজি প্লাস প্রজন্মের ভিভিইআর ১২০০ মডেলের।

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের যে যন্ত্রে নিউক্লিয়ার ফুয়েল (পারমাণবিক জ্বালানি) ইউরেনিয়াম থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় তার মূল কাঠামো হচ্ছে এই বিশেষ যন্ত্র অর্থাৎ রিয়্যাক্টর প্রেসার ভেসেল (পরমাণু চুল্লি)। এই রিয়্যাক্টরকে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের হার্ট বা হৃৎপিণ্ড বলা হয়।

পারমাণবিক প্রকল্পের নিয়ন্ত্রণকারী আন্তর্জাতিক সংস্থা-ইন্টারন্যাশনাল এ্যাটমিক এ্যানার্জি অ্যাসোসিয়েশনের (আইএইএ) গাইড লাইন অনুযায়ী এবং সংস্থাটির কড়া নজরদারির মধ্য দিয়েই রূপপুর প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলেছে।

স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রূপপুরে ২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নেন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন (রাশিয়া) সফরের সময় দেশটির তৎকালীন রাষ্ট্রপতি নুপুরকে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে সহযোগিতার অনুরোধ করেন।

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর এই প্রক্রিয়া থেমে যায়। দীর্ঘদিন পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নেন বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের তৎকালীন চেয়ারম্যান ডক্টর এম এ ওয়াজেদ মিয়া।

এরপর প্রক্রিয়া আগাতে থাকলেও ২০০১ সালে সরকার পরিবর্তনের পর এই কার্যক্রম আবার হোঁচট খায়। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর পুনরায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের কার্যক্রম শুরু করে। পরমাণু শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহারে রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের সমঝোতা হয়। ২০২১ সালে রাশিয়ার সঙ্গে এ বিষয়ে বাংলাদেশের চুক্তি স্বাক্ষর হয়। এরপর প্রক্রিয়া আরও এগিয়ে যায়।

স্বাধীনতার পর গত ৫০ বছরের মধ্যে রূপপুর প্রকল্পই দেশের সবচেয়ে বড় এবং অর্থনৈতিক দিক থেকে সর্বাধিক ব্যয়বহুল প্রকল্প। ১ লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকারও বেশি খরচের এই প্রকল্পে ৯০ ভাগ টাকা ঋণ দিয়েছে রাশিয়া। একইসঙ্গে আন্তঃরাষ্ট্রীয় কয়েকটি চুক্তির মাধ্যমে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণ করছে রূশ ঠিকাদার এটমস্ট্রয়এক্সপোর্ট।

প্রথমত, করোনা মহামারি; দ্বিতীয়ত, রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের মতো সংকট এসেছে ঠিকই কিন্তু সব পেরিয়ে পদ্মার ধু-ধু বালুচরে উঁকি দিচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্প। যেটি চালু হলে একক উৎস থেকে বাংলাদেশ পাবে ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। এ বিদ্যুৎকেন্দ্রটির স্থায়িত্ব হবে ৬০ বছর। এরপর দুই ধাপে ২০ বছর করে বাড়িয়ে মোট ১০০ বছর উৎপাদনে থাকবে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

সর্বশেষ - সারা দেশ

আপনার জন্য নির্বাচিত

তানোরে পোস্ট অফিসের সাইনবোর্ড আছে অফিস নাই

ভাঙ্গায় ২১ সদস্য বিশিষ্ট একটি উপজেলা সাংবাদিক ঐক্য জোট কমিটি গঠনঃ

সুনামগঞ্জ বিশ্বম্ভরপুরে উদ্ভাবিত উচ্চ ফলনশীল ও স্বল্পজীবনকালীন বিনাধান-১৭ সম্প্রসারনের লক্ষ্যে মাঠ দিবস

সুনামগঞ্জে জাতীয় সমবায় দিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন,

মির্জাপুরে মাদ্রাসা ছাত্র সিফাতকে হত্যা করা হয় সালিশে জুতাপেটার অপমানের প্রতিশোধ নিতে

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের উপ – আইন বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হলেন আজহারুল।

রাজশাহীতে কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ, ছাত্র পুলিশ হেফাজতে

উলানিয়া বন্দরের রাস্তা যেনো মরণ ফাঁদ

“অভাগিনীর আত্মকথা”

৫৯ বিজিবির অভিযানে চৌকা সীমান্তে পাতার বিড়ি, কাগজের বিড়ি,তামাক পাতা আটক

%d bloggers like this:

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট